img

বাংলাদেশে করোনাভাইরাস

মোট আক্রান্ত২৬৬,৪৯৮

সুস্থ১৫৩,০৮৯

মৃত্যু৩,৫১৩

বিশ্বে করোনাভাইরাস

মোট আক্রান্ত২০,৭৬৫,৯৩১

সুস্থ১৩,৬৭৭,১৭০

মৃত্যু৭৫১,১৬১

বাঘারপাড়ার খলশীতে চাপাতির কোপে আহত ১

image

নিজস্ব প্রতিবেদক : যশোরের বাঘারপাড়া উপজেলায় জমিজমা দখলকে কেন্দ্র করে চাপাতির কোপে এক ব্যক্তি আহত হয়েছেন। আহত নাছের মল্লিক (৫০) উপজেলার খলশী গ্রামের মৃত দেলবার মল্লিকের ছেলে। একই গ্রামের আবু বক্কারের ছেলে আশরাফ আলীর নেতৃত্বে তার সন্ত্রাসী বাহিনীরা হামলা চালায় বলে অভিযোগ উঠেছে। শনিবার (০৬ জুন) সন্ধা ৭টার দিকে তারা নাছেরের বাড়ীতে এ ঘটনা ঘটে। বর্তমানে আহত ওই ব্যক্তি নড়াইল সদর হাসপাতালে চিকিৎসাধীন রয়েছেন। 

আহত নাছেরের চাচা পুলিশ কনস্টেবল ওলিয়ার রহমান জানান, দীর্ঘদিন যাবৎ খলশী গ্রামের আশরাফ জোরপূর্বক তার ভাইপো নাছেরের জমি দখলের পায়তারা করে আসছিলো। দোহাকুলা ইউপি চেয়ারম্যান বিষয়টি জানলেও তিনি কখনো কোন ব্যবস্থা নেননি। গত শনিবার সন্ধ্যা ৭টার দিকে আশরাফ, তার ভাই আজগার আলী, চাচাতো ভাই ইমামুল, ভাগ্নে কিবরিয়া ও কুদ্দুস নাছেরের বাড়ীতে প্রবেশ করে সশস্ত্র হামলা ও ভাংচুর চালায়। এ সময় নাছের এগিয়ে আসলে আশরাফ তার হাতে থাকা চাপাতি দিয়ে নাছেরকে কুপিয়ে আহত করে। প্রতিবেশীরা চিৎকার শুনে এগিয়ে আসলে হামলাকারীরা পালিয়ে যায়। মুমুর্ষ অবস্থায় নাছেরকে উদ্ধার করে তাৎক্ষনিক হাসপাতালে পাঠানো হয়। 

তিনি ক্ষোভের সাথে আরও বলেন, আমি দেশের মানুষের নিরাপত্তার জন্য নিরন্তর কাজ করে চলেছি। কিন্তু আমার পরিবারই আজ ৩ বছর ধরে নিরাপত্তাহীনতায় ভুগছে। প্রশাসনের কাছে এ ঘটনার সুষ্ঠু বিচার ও তার পরিবারের জন্য নিরাপত্তা প্রার্থনা করেছেন এ পুলিশ সদস্য। 

আহত নাছের মল্লিকের জানান, তার জমিজমা জোর করে দখলের জন্য আশরাফ দীর্ঘদিন যাবৎ চেষ্টা চালিয়ে যাচ্ছেন। বিভিন্ন সময়ে তাকে হুমকি ধামকি ও দেন। শনিবার পূর্বপরিকল্পনা অনুযায়ী তার উপর হামলা চালায় আশরাফ ও তার বাহিনী। এর আগে আশরাফ তাদের প্রতিবেশী ফেলু মোল্লার বাড়ি ভাংচুর ও তাকে মারপিট করে। এতে স্থানীয় একটি রাজনৈতিক মহল ইন্ধন জোগাচ্ছে। পলিশ বিষয়টি সম্পর্কে জানলেও কোন এক অদৃশ্য কারণে প্রশাসনিক ব্যবস্থা নিচ্ছে না। এদের বিরুদ্ধে প্রশাসন ব্যবস্থা না নিলে ভবিষ্যতে আরও বড় ধরনের ঘটনা ঘটতে পারে। 

হামলা ও মারপিটের ঘটনার সত্যতা স্বীকার করে দোহাকুলা ইউপি চেয়ারম্যান আবু মোতালেব তরফদার জানান, জমিজমা বিরোধের এ ঘটনায় উভয় পক্ষকে নিয়ে বেশ কয়েকবার মিমাংসায় বসলেও কোন কাজ হয়নি। কারণ এর পেছনে একটি রাজনৈতিক কুচক্রী মহলের হাত রয়েছে। আমার পক্ষে এ ঘটনার অদৌ মিমাংসা করা সম্ভব না।